কেমন হবে মেয়েদের অফিসিয়াল ড্রেসআপ?

সময়ের সাথে পাল্লাদিয়ে ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরাও অফিসিয়াল official কাজে সমান তালে এগিয়ে আসছে । ফলে ছেলেদের মতো তারাও ব্যস্ত থাকছেন বিভিন্ন ধরনের কর্মকাণ্ডে। তাদের মধ্যেও গড়ে উঠছে কর্পোরেট সংস্কৃতি।


কিছুদিন আগেও মেয়েরা মনে করতো অফিসে পোশাক ও সাজগোজের shajgoj দিকে নজর না দিয়ে কাজকে প্রাধান্য দিলেই চলবে। কিন্তু বর্তমানে পাল্টে গেছে সেই ধারনা। এখন অফিসে কাজের দতার সঙ্গে সাজগোজ ও পোশাকের বিষয় প্রাধান্য পায়।

চাকরির প্রথম দিন কী ধরনের পোশাক পরবেন এমন বিষয় নিয়ে অনেকেই চিন্তা করেন। এক্ষেত্রে  অফিসের ধরন দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিৎ। যে অফিসে জয়েন করবেন সে অফিসের বেশির ভাগ নারী কি পোশাক পরেছেন প্রথমে তা খেয়াল করা উচিৎ। সাধারণত স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় হলে শাড়ি কিংবা সালোয়ার কামিজ পরা উচিৎ। অন্যদিকে কর্পোরেট অফিস হলে লেডিস স্যুটে দারুন মানিয়ে যায়। তবে এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে অফিসের পোশাকের রঙ, ডিজাইনে যেন শালীনতা বজায় থাকে। গরমের দিনে অফিসের পোশাকের জন্য হালকা রঙ বাছাই করা উচিৎ। যারা এয়ারকন্ডিশনড পরিবেশে কাজ করেন না তাদের জন্য সুতি পোশাকই ভালো। কারণ সুতি কাপড় সহজেই ঘাম শুষে নেয়।

অফিসে গহনা পরার ক্ষেত্রে ছোট ছোট গহনা পরা ভাল। জুতা এবং ব্যাগের রঙ কাছাকাছি শেডের মধ্যে বাছাই করলে দেখতে দারুণ লাগবে। ল্যাপটপ ক্যারি করতে হলে বড় ব্যাগ বাছাই করলে ল্যাপটপের সঙ্গে অন্যান্য জিনিসও অনায়াসে নেওয়া যাবে। অনেক সময় কাজের চাপে কান্ত হয়ে চোখে রাজ্যের ঘুম এসে যেন জড় হয়। কিন্তু তা অফিসে সবাইকে বুঝতে দেওয়া নিশ্চয় বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। তাই চোখে একটু কাজল লাগিয়ে নিন, ব্যস হয়ে গেল। আর এটা ৫/১০ মিনিটের মধ্যেই সেরে ফেলা সম্ভব। অফিসে ভারি মেকআপ না নেওয়াই ভালো।

অফিসের Office সাজের ক্ষেত্রে মুখে হালকা ফাউন্ডেশন এবং ফেসপাউডার ব্যবহার করলে ত্বকের প্রাণবন্ততা ফিরবে। কিন্তু ত্বক ও ফাউন্ডেশনের রঙের যেন মিল থাকে। চোখে মাস্কারা এবং ঠোঁটে হালকা রঙের লিপিস্টিক লাগানো যেতে পারে। এছাড়া কেউ ইচ্ছে করলে লিপগ্লসের শরণাপন্ন হতে পারেন। আর মুখের আদ্রতা ধরে রাখতে চাইলে ময়েশ্চারাইজার ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। সহজেই প্রাণবন্ত হয়ে উঠবে আপনার চেহারা। শেষপর্যন্ত বাকি থাকে সাজের অন্যতম অনুষঙ্গ চুল। বেশিকিছু নয়, শুধু চুল গুলোকে একটু গুছিয়ে আঁচড়ে নিলেই পূর্ণতা পেয়ে যাবে আপনার সাজ। তবে অব্যশ্যই শরীরের গন্ধ থেকে বাঁচতে ভালো কোনো ব্র্যান্ডের ডিউডোরেন্ট বা পারফিউম ব্যবহার করা উচিৎ।

√ লেখাটি ভালো লাগলে প্লিজ শেয়ার করবেন শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন