চুল পড়া রোধে ঘরেই তৈরি করে নিন ২টি আয়ুর্বেদিক তেল!

চুলের পুষ্টির জন্য তেলের বিকল্প নেই। যারা চুলে তেল লাগাতে চায় না, তারা চুলের সবচেয়ে বড় ক্ষতি করে থাকে। তেল চুলের গোড়া থেকে পুষ্টি যোগিয়ে চুলকে সিল্কি, শাইনি করে তোলে। আমরা সাধারণত বাজারের নারকেল তেল, বাদাম তেল ব্যবহার করে থাকি। আয়ুর্বেদিক তেল চুলের জন্য বেশ উপকারী। এটি চুল পড়া রোধ করে চুলকে স্বাস্থ্যজ্বল ঝলমলে করে তোলে।


১। আয়ুর্বেদিক আমলা তেল –

যা যা লাগবে-
– ১০০ গ্রাম আমলকি পাউডার
– ২৫০ গ্রাম বিশুদ্ধ নারকেল তেল
– ৪ লিটার পানি

এক তৃতীয়াংশ আমলকির গুঁড়ো পানির সাথে মিশিয়ে সিদ্ধ করে নিন। অল্প আঁচে মিশ্রণটি নাড়তে থাকুন পানি ১ লিটারে কমে না আসা পর্যন্ত। এবার পানিটি একটি সুতির কাপড়ে ছেঁকে নিন। বাকী আমলকির গুঁড়ো পানির সাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এখন একটি বড় পাত্রে আগের ছাকা আমলকি পানি এর সাথে আমলকির পেস্ট এবং নারকেল তেল  মিশিয়ে নিন। এবার পাত্রটি চুলায় ফুটতে দিন। ফুটে ঘন হয়ে আসলে চুলা থেকে নামিয়ে ফেলুন। ঠান্ডা হয়ে এলে গ্লাস কন্টেইনারে সংরক্ষণ করুন। ভাল ফল পেতে সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করুন।

২। তুলসি আয়ুর্বেদিক তেল

যা যা লাগবে-
– নতুন তুলসি পাতা অথবা তুলসি পাউডার
– বিশুদ্ধ নারকেল তেল
– পানি
– মেথি

কয়েকটি তুলসি পাতা অথবা কয়েক চামচ তুলসি পাতা গুঁড়ো পানির সাথে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে নিন। যদি তুলসি পাতা ব্যবহার করেন তবে তুলসি পাতা পানি দিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন। এবার ১০০ মিলিলিটার নারকেল তেলের সাথে তুলসি পাতার পেস্ট মিশিয়ে চুলায় জ্বাল দিন। এর সাথে কয়েকটি মেথি দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ জ্বাল দেওয়ার পর নামিয়ে ফেলুন। ঠাণ্ডা হয়ে এলে এটি কাঁচের জারে সংরক্ষণ রাখুন। সপ্তাহে দুইবার এই তেল মাথায় ম্যাসাজ করুন। তারপর শ্যম্পু করে ফেলুন।

টিপস:
আয়ুর্বেদিক তেল ঠান্ডা স্থানে রাখুন। এতে কোন রাসায়নিক উপাদান ব্যবহার না করার কারণে রোদের তাপে তেল নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ব্যবহার পর খুব ভাল করে তেলের ঢাকনাটি লাগিয়ে রাখুন। এই তেল আপনার চুল পড়া রোধ করবে, নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে। এমনকি আপনার নিষ্প্রাণ চুলকে স্বাস্থ্যোজ্বল করে তুলবে।