ত্বকে বলিরেখা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করবে যে ৫টি অভ্যাস

“আমি প্লাষ্টিক সার্জারি ছাড়াই আমার চেহারার যৌবন ধরে রাখব”- এমনটি বলেছিলেন বিশ্ব বিখ্যাত হলিউড তারকা মেরেলিন মনরো। আদতে সকলেই চায় তার ত্বকের যৌবন ধরে রাখতে। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে ত্বকে বলিরেখা Wrinkles, বয়সের ছাপ পড়ে যায়। বয়সের ছাপ বা বলি রেখা একবার পড়ে গেলে তা দূর করা বেশ কষ্টসাধ্য। তবে কিছু নিয়ম মেনে চললে ত্বকে রিংকেল বা বলিরেখা পড়া রোধ করা সম্ভব।

১। অতিরিক্ত মুখ ধোয়া –
নিয়মিত মুখ পরিষ্কার করা আপনার ত্বকের জন্য ভাল। কিন্তু অতিরিক্ত মুখ ধোয়া ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। প্রাকৃতিকভাবে ত্বকে তেল রয়েছে যা ত্বক নরম এবং ময়েশ্চারাইজড রাখে। অতিরিক্ত মুখ ধোয়ার ফলে মুখের তেল নষ্ট হয়ে যায়। যা ত্বককে রুক্ষ এবং বয়স্ক করে তোলে। তাই অতিরিক্ত মুখ ধোয়া থেকে বিরত থাকুন।

২। পানি পান –
ত্বক সুস্থ রাখতে পানি পানের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। এটি ত্বক সুস্থ রাখার পাশাপাশি দেহ হতে টক্সিন বের করতে সাহায্য করে। ত্বক সুস্থ, হাইড্রেড, উজ্জ্বল রাখতে প্রতিদিন কমপক্ষে ৮ গ্লাস পানি পান করা উচিত।

৩। ওমেগা থ্রি সমৃদ্ধ খাদ্য গ্রহণ –
ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড ত্বক এবং শরীরের জন্য অনেক বেশি দরকারী একটি উপাদান। সামুদ্রিক মাছ, মাছের তেল ইত্যাদি খাবারে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি রয়েছে। এছাড়া আপনি ওমেগা থ্রি সাপ্লিমেন্টরী খেতে পারেন। ওমেগা থ্রির সাথে অ্যান্টি অক্সিডেন্টযুক্র খাবার খেতে হবে। কমলা, আঙ্গুর, পেয়ারা, গাজর, মিষ্টি আলু, টমেটো, আম, মিষ্টি কুমড়া, কাঠ বাদাম, ক্যাপসিকাম, পালং শাক ইত্যাদি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবার। প্রতিদিনাকার খাদ্য তালিকায় এই খাবারগুলো রাখার চেষ্টা করুন।

৪। সানস্ক্রিনের ব্যবহার –
সানস্ক্রিনের ব্যবহার ছাড়া রোদে বের হওয়া উচিত নয়। সূর্যের ক্ষতিকর রশ্নি ইউভি আপনার ত্বকের কোষের ক্ষতি করে থাকে। যা ত্বকে বলিরেখা সৃষ্টি করার পাশাপাশি স্কিন ক্যান্সার মত রোগও সৃষ্টি করতে পারে। প্রতিদিন ঘর থেকে বের হওয়ার আগে এসপিএফ-১৫ বা তার বেশি এসপিএফ ব্যবহার করুন।

৫। ম্যাসাজ –
নিয়মিত ম্যাসাজে আপনার ত্বকে বলিরেখা, চোখের নিচে কালি দূর করে থাকে। যে সকল স্থানে বলি রেখা পড়ার সম্ভাবনা থাকে (ঘাড়, চোখের নিচ, কপাল) সেখানে ভাল করে ম্যাসাজ করুন। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল মুখে ম্যাসাজ করে একটি নরম তোয়ালে দিয়ে মুছে ফেলুন। এটি ত্বক নরম কোমল করে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখবে। সপ্তাহে ২ বার কোন ঘরোয়া প্যাক ব্যবহার করুন।

বলিরেখা প্রতিরোধ করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমের প্রয়োজন রয়েছে। এছাড়া ধূমপানের অভ্যাস থাকলে তা আজই পরিত্যাগ করুন।