নিজের বয়স ১০ বছর কমিয়ে ফেলুন

বয়স যখন চল্লিশের কোঠা পার হয়, তখন অনেকেই নিজেকে আয়নায় দেখে বছর দশেক আগেকার কথা ভাবতে থাকেন। নিজের কল্পনায় নিজের ফেলে আসা দিনগুলোকে দেখতে থাকেন। কিন্তু কেমন হয় যদি চল্লিশের কোঠা পার হয়েও নিজের মধ্যে সেই ত্রিশের লুকটা ধরে রাখতে পারেন? অবশ্যই ভালো লাগবে। ভাবছেন কীভাবে করবেন এই অসম্ভবকে সম্ভব? তাহলে মেনে চলুন এই ৫ টি ধাপ।

লো ফ্যাট ডায়েটের কথা ভুলে যান –
নিজের শরীরটাকে ফিট রাখতে অনেকেই বেশ অল্প বয়স থেকেই সব কিছুতে লো ফ্যাট খুঁজে থাকেন। কিন্তু আপনি যদি চল্লিশের পরও নিজের চেহারায় ত্রিশের লুক ধরে রাখতে চান তবে এই লো ফ্যাট ডায়েটের কথা একেবারেই ভুলে যেতে হবে। কিছুটা ফ্যাট আমাদের দেহের ক্ষতি নয় বরং উপকারেই আসে। ফ্যাট আমাদের দেহের পাওয়ার হরমোনগুলোকে রেগুলেট করে। এবং আমাদের ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখে।

একই গতিতে শারীরিক পরিশ্রম এড়িয়ে চলুন –
নিয়মিত ব্যায়াম দেহকে ফিট রাখতে সহায়তা করে। কিন্তু আপনি যদি প্রতিদিন বছরের পর বছরে গৎবাঁধা নিয়মে শারীরিক ব্যায়াম করেই যেতে থাকেন তাহলে তা কিন্তু আপনার দেহ ও ত্বকের ওপর বেশ বড় প্রভাব ফেলবে। মাঝে মাঝে দেহকে কিছুদিনের বিশ্রাম দেয়া এবং বয়সের সাথে সাথে ব্যায়ামের নিয়মাবলী পরিবর্তনের প্রয়োজন রয়েছে। কারণ আপনি যেমনটি ৩০ বছর বয়সে করেছেন তা আপনি ৪০ পেরিয়ে করতে পারবেন না। এতে দেহে চাপ পড়বে।

‘বয়স হয়ে গিয়েছে’ কথাটি বলবেন না –
বয়স হয়েছে বলে আপনি ত্বকের যত্ন করবেন না, আগের মতো পরিশ্রম ও ব্যায়াম করবেন না। এই ধরণের কাজ থেকে দূরে থাকুন। সবকিছুর দোষ নিজের বয়সের কাঁধে চাপিয়ে দেবেন না। মনের ভেতর ইচ্ছেশক্তি জাগিয়ে তুলুন। দেহ ও ত্বকে তারুণ্য ধরে রাখতে কাজ করুন।

পানিশূন্যতা প্রতিরোধ করুন-
দেহে পানিশূন্যতা বাসা বাধতে দেবেন না। পানি আপনার দেহ, ত্বক ও দেহের অভ্যন্তরীণ অঙ্গপ্রত্যঙ্গের জন্য বিশেষভাবে জরুরী। পানিশূন্যতার ফলে ত্বকের নিষ্প্রাণ ভাব চলে আসে, কিডনির ক্ষতি হয়, দেহে ভর করে দুর্বলতা এবং সেই সাথে মনে চলে আসে বার্ধক্য। নিয়মতি দিনে ৬-৮ গ্লাস পানি পান দেহকে রাখে টক্সিনমুক্ত, সুস্থ ও সবল এবং ধরে রাখে তারুণ্য।

ব্যায়াম করা কমিয়ে ফেলুন –
শারীরিক ব্যায়াম আমাদের ফিট রাখে ঠিকই কিন্তু অতিরিক্ত শারীরিক ব্যায়ামের কারণে দেহের মাংশ পেশি ও হাড়ের দুর্বলতা বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এবং ত্বকের ওপরেও পড়ে মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। তাই শারীরিক ব্যায়াম কম করে সঠিক নিয়মে করুন।

__ভালো লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না__

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *