পূজায় সপ্তমী ও অষ্টমী সাজ

পূজার আমেজে বেছে নেওয়া যেতে পারে আলাদা আলাদা রং। পাঁচ দিনে ভিন্ন পাঁচ সাজ। এর মধ্যে আবার রাত আর দিনের তফাতটাও মনে রাখতে হবে।


শারদীয় দুর্গাপূজার ষষ্ঠী থেকে দশমী, পাঁচটা দিন। প্রতি দিনই নিজেকে সাজানো যাবে মন ভরে। পোশাক হতে পারে দেশি কিংবা পাশ্চাত্য ঢংয়ের। তবে এক্ষেত্রে কোন সাজে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে থাকেন সে অনুযায়ী এবং রুচি ও ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মিলিয়ে পোশাক বেছে নিতে হবে।

সাজার সুযোগটা তাই বেশি-আধুনিক বা ঐতিহ্যবাহী যে কোনোভাবে নিজেকে সাজিয়ে তোলা যাবে। আর সাজসজ্জার খুঁটিনাটি বিষয়গুলি নিয়ে জানিয়েছেন রূপবিশেষজ্ঞ শিবানী দে।

সপ্তমীর সাজ –

সপ্তমীতে একটু হালকা সাজই মানানসই। দিনের বেলার সাজ যতটা সম্ভব হালকা রাখা ভালো।

শিবানী দে বলেন, “দিনে মন্দিরে যাওয়া বা পূজার অঞ্জলি দেওয়ার সময় প্রকৃতির সজীবতা থাকা চাই সপ্তমীর সাজে। পোশাকের ক্ষেত্রে হাল্কা নীল, আকাশি, সিন্ধ বা নেভি ব্লু রংয়ের পোশাক নির্বাচন করুন। এ ছাড়া হালকা ছাপার সুতি শাড়ি বা এক রংয়ের পাড় দেওয়া শাড়ি পরতে পারেন।”

“দিনের উৎসবে মেইকআপ বেইজ করার জন্য ত্বকের স্বাভাবিক রংয়ের সঙ্গে মিলিয়ে ট্রান্সলুসেন্ট পাউডার বা খুব হালকা করে ফাউন্ডেশন লাগানো যেতে পারে। ফাউন্ডেশন হালকা করার জন্য এর সঙ্গে সামান্য জল মিশিয়ে নিন। খুব অল্প পরিমাণে ফাউন্ডেশন পুরো ত্বকে ভালোভাবে মিশিয়ে এর উপর পাউডার বুলিয়ে নিন।”

“তবে মেইকআপের শুরুতে ক্লিনজিং মিল্ক দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে সানস্ক্রিন লোশন লাগাতে ভুলবেন না। দিনে চোখের সাজে অফ হোয়াইট হাইলাইট, কালো ও বাদামি রংয়ের মিশেল আইশ্যাডো, পেনসিল আই লাইনার ব্যবহার করতে পারেন। অথবা চাইলে শুধু কাজলের একটা হালকা রেখাও দিনে সাজে যথেষ্ট। এক্ষেত্রে পাপড়িতে ঘন করে মাশকারা দেওয়া যেতে পারে।” বলেন শিবানী।

তিনি আরও পরামর্শ দেন, দিনে লিপস্টিকের রংয়ের ক্ষেত্রে বেছে নেওয়া যেতে পারে কোরাল, হালকা কমলা, হালকা গোলাপি ইত্যাদি লিপস্টিক অথবা লিপগ্লসও মানাবে এই সময়। সঙ্গে হালকা গোলাপি বা পিচ রংয়ের ব্লাশন।

শাড়ি পরলে মানানসই টিপ দেওয়া যেতে পারে। বিবাহিতরা সিঁথিতে সিঁদুর বুলিয়ে নেবেন। এদিনের জন্য হালকা গয়নাই বেশি মানানসেই। বাইরে বের হওয়ার আগে ভালো মনের পারফিউম ব্যবহার সাজে পূর্ণতা আসবে। সারা দিনের জন্য বের হলে চুলটা এমনভাবে বাঁধা উচিত যাতে বাড়তি ঝামেলা পোহাতে না হয়।

সপ্তমীর রাতের সাজটাও হবে হালকা। খানিকটা ফাউন্ডেশন লাগিয়ে তার উপর ফেইস পাউডার লাগিয়ে নিতে হবে। চোখের ওপর নীল বা ছাই আইশ্যাডো লাগানো যেতে পারে। এর উপর রূপালি রংয়ের হাইলাইটার দেওয়া যেতে পারে।

সন্ধ্যার সাজে চোখে মোটা করে কাজল বেশ মানাবে। চোখের পাপড়িতে ভারি করে মাশকারা পরলে চোখের সাজ পূর্ণতা পাবে।

আর চোখের সাজ ভারি হলে ঠোঁটে লিপস্টিক বেছে নিতে হবে হালকা রংয়ের। কপালে বড় লাল টিপ ও সিঁথিতে সিঁদুর পরতে পারেন বিবাহিতরা। শাড়ির সঙ্গে সামনের চুল ফুলিয়ে পিছনটা আয়রন করে খোলা রাখতে পারেন পছন্দমতো।

অষ্টমীর সাজ –

অষ্টমী সাজ হবে অন্য রকম। তবে দিনের সাজে স্বাভাবিকভাবটা ধরে রাখা জরুরি। তবে অষ্টমীতে গাঢ় রংয়ের শাড়ি ও পোশাক বেছে নেওয়া উচিত। লাল, মেরুন, তসর, সিল্ক, কাতান অথবা সাদার-লাল পাড় শাড়ি পরতে পারা যেতে পারে এদিনে। আঁচলে ভারি কাজ আছে এ রকম লাল পাড়ের শাড়ি এক প্যাঁচ করে পরলে ভালো দেখাবে।

অষ্টমীর দিন সকালে লাল শাড়ি পড়ার প্রচলন আছে। মেইকআপের শুরুতে ক্লিনজিং মিল্ক দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে টোনার বুলিয়ে সানস্ক্রিন লোশন লাগিয়ে নিতে হবে। দিনের সাজে মেইকআপ যতটা সম্ভব হালকা হওয়া উচিত।

শিবানী দে বলেন, “পোশাকের রংয়ের সঙ্গে মিলিয়ে বা কন্ট্রাস্ট করে চোখে আইশ্যাডো লাগান। পেনসিল আই লাইনার দিয়ে কিছুটা মোটা করে লাইন টেনে আইশ্যাডো ব্রাশ দিয়ে স্মাঞ্জ করে দিন। মাশকারা দিন ঘন করে। ঠোঁটে লাল রংয়ের লিপস্টিক লাগাতে পারেন। সঙ্গে হালকা পিংক ব্লাশন। কপালে বড় লাল টিপ লাগিয়ে নিতে পারেন। আর বিবাহিতদের সিঁথিতে সিঁদুর তো আছেই। পায়ের আলতা দিতে পারেন পছন্দ অনুযায়ী।”

গোল্ড প্লেটের গয়না বেছে নিতে পারেন এদিনে। বাইরে বের হওয়ার আগে ভালো মানের পারফিউম ব্যবহার করে নিন। চুল সামনের দিকে সেট করে পিছনে কার্ল করে ছেড়ে বা বেঁধে নিতে পারেন। কানের পিছনে চুলে গুজে দিন বেলি ফুলের মালা বা সাদা ও লাল জারবেরা।

অষ্টমীর রাতের সাজটা চাই জমকালো। ত্বকের রংয়ের সঙ্গে মিলিয়ে ফাউন্ডেশন লাগিয়ে তার উপর ফেইস পাউডার লাগিয়ে নিন। চোখের ওপর মন মতো আইশ্যাডো লাগিয়ে নিন। চোখের ভিতরের কোণে হাইলাইটার ব্যবহার করে নিন। চোখে গাঢ় করে কাজল পরুন। মাশকারা দিন কয়েক পরতে। এতে চোখ আরও আকর্ষণীয় দেখাবে।

গালে গাঢ় রংয়ের ব্লাশন বুলিয়ে নিন। চোখের মেইকআপ কিছুটা হালকা হলে ঠোঁটে গাঢ় লিপস্টিক লাগাতে পারেন। কপালে বড় লাল বা শাড়ির রংয়ের সঙ্গে মিলিয়ে টিপ পরতে পারেন। কিছুটা ভারি গয়না পরে সবশেষে সুগন্ধী ব্যবহার করুন।

শাড়ির সঙ্গে মানিয়ে চুল বেঁধে বা ছেড়ে রাখতে পারেন। সাজে পুর্ণতা আনতে চুলে গুজে নিতে পারেন পছন্দ মতো ফুল।

মডেলঃ অভিনেত্রী তিশা
ছবিটি ইন্টারনেট হতে সংগৃহীত
তথ্যসুত্রঃ ইন্টারনেট