বিয়ের প্রলভন দেখিয়ে নির্জন বাড়িতে পালাক্রমে সে আমাকে ধর্ষণ করে… পড়ুন বিস্তারিত

আমি কলেজে যাবার পথে প্রিন্স আমাকে সরাসরি প্রপোজ করে। প্রথম দিকে তাকে পাত্তা দেয়নি কিন্তু ছেলেটার সুমধুর কথাবার্তা আমাকে তাকে ভালবাসতে বাধ্য করে। কিন্তু আমি কখনই বাবার বিরুদ্ধে কথা বলতে পারি না , প্রচণ্ড রাগী এবং বদমেজাজী আমার বাবা।

দেখুন একজন নারী পাগল হয়ে উঠলে কী করতে পারে ! (ভিডিওসহ)

সে ভালবাসে প্রিন্সকে তাকে ছাড়া কাউকে স্বামী বলে ভাবতে পারেনা। বুকে সাহস সঞ্চয় করে সুবর্না কথা বলে তার বাবা সাথে।

শুক্রবার ব্যালকনিতে চেয়ারে বসে ভাবছেন আর কিছুদিন পর মেয়েটির বিয়ে, ভাবতেই বুকের ভিতর একটা চাপা কষ্ট অনুভব করেন আমজাদ সাহেব। ঠিক সেই সময় তার সামনে হাজির হয় সুবর্না।
– বাবা তুমি কি খুব ব্যস্ত
– নারে মা । তুই কি কিছু বলবি
– হ্যা বাবা তোমার সাথে কিছু কথা ছিল
– বাবা আমি একটি ছেলে কে ভালবাসি তাকে ছাড়া কাউকে বিয়ে করতে চাই না।
– দেখ মা, বাবা মা কখনই সন্তানের অমঙ্গল চায় না। ছেলেটা ভাল, ব্যাংকে চাকরি করে ঢাকাতে বাড়ি আছে । আর তুই যে ছেলেটার কথা বললি সেই ছেলেটার চরিত্র ভালো না।
– কিন্তু বাবা…
– কোন কিন্তু , মিন্ত শোনতে চাই না আমি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছি তোমাকে সেই সিদ্ধান্তই তোকে মানতে হবে।
এবার যেন আমজাদ সাহেব একটু রেগে গেলেন।

সুবর্না যদি বিয়ে করতে হয় প্রিসকেই বিয়ে করবে আর কাউকে নয়।

মা বাবার স্বপ্নের সাধ কে চূরমার করে দিয়ে প্রিন্সের মোহে বাড়ি থেকে পালিয়েছে সুবর্না
কিন্তু সুবর্না জানে না প্রিন্স একজন সিরিয়াল রেপার।  আজ সেই সিরিয়াল রেপারের শিকার সুবর্না।

বিয়ের কথা বলে প্রিন্স নামের এই নর খাদকটা তাকে নিয়ে যায় কোন এক নির্জন বাড়িতে। বিয়ের প্রলভন দেখিয়ে স্ত্রীর মত ব্যবহার করে কিছু দিন। যখনই সুবর্না প্রিন্সের মতলবটা বুঝতে পারে ঠিক তখনই পালাক্রমে তারে ধর্ষণ করে সমাজের পঁচে যাওয়া শকুনেরা। সুবর্নার সুন্দর দেহটা ক্ষত বিক্ষত হয়ে যায় শকুনের থাবায়। তার বুকের গভীরে প্রিন্সকে নিয়ে সাজানো স্বপ্ন নিমেষেই ভেঙে খার খার হয়ে যায়।

মাত্র দুই সপ্তাহে গায়ের রঙ ফর্সা করুন বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

সুবর্নার আজ মরে যেতে ইচ্ছা করে। জীবনের মায়ায় আনেকবার আত্মহত্যা করতে গিয়েও পারেনি। আর তার মা বাবাও পারেনি আনেক কষ্টে লালিত সন্তানকে ফিরিয়ে দিতে। সুবর্নার দিকে তাকালে আমজাদ সাহেবের বুকটা ভেঙে চৌচির হয়ে যায়।

সুবর্না তার জীবনের সব কিছু হারিয়ে বুঝতে পারে ভালবাসার মোহে অন্ধ, তার প্রিয় মা বাবার কথা সে রাখেনি। সে কি পারবে বিশময় অতীত কে ভুলে সামনে এগিয়ে যেতে।