ভ্রমণের সময় গর্ভবতী নারীদের জন্য কিছু বাড়তি সতর্কতা

ভ্রমণের সময় গর্ভবতী নারীদের প্রয়োজন কিছু বাড়তি সতর্কতা। বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন না করলে গর্ভের শিশুর ক্ষতি হতে পারে। সেই সঙ্গে গর্ভবতী নারীর শরীরের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই আসুন জেনে নিই গর্ভবতী নারীর ভ্রমণের সময় কী কী সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত_

১) গর্ভবতী নারীদের উচিত জরুরী ভ্রমণের সময় মেডিকেল কাগজপত্র সঙ্গে রাখা। কারন বিপদের সময়ে সেগুলো কাজে লাগবে।

২) গর্ভবতী নারীর উচিত ড্রাইভারকে ধীরে চালাতে বলে দেওয়া। কারণ ভাঙা রাস্তায় জোড়ে গাড়ি চালালে গর্ভবতী নারীর সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

৩) ভ্রমণের সময়ে অবশ্যই জরুরি ওষুধ ও পানি সঙ্গে নিতে হবে। ফুটানো পানির বেশ কিছু বোতল সঙ্গে রাখা জরুরি।

৪) গর্ভবতী নারীদের বাইরের খাবার একেবারেই খাওয়া উচিত না। বাইরের খাবার খেলে ফুডপয়জনিং হওয়ার ঝুঁকি থাকে যা গর্ভাবস্থায় খুবই ঝুঁকি পূর্ণ।

৫) বাসের একদম পেছনের দিকের সিট কিংবা ট্রেনের একেবারে পেছনের দিকের বগিতে অনেক বেশি ঝাঁকি অনুভূত হয়। তাই গর্ভবতী নারীদের উচিত টিকেট করার সময়ে নিজের অসুবিধার কথা জানিয়ে সামনের দিকের সিট নির্বাচন করা।

৬) গর্ভাবস্থায় অনেকক্ষণ একস্থানে বসে থাকতে থাকতে পায়ে পানি এসে পা ফুলে যেতে পারে। এছাড়াও দীর্ঘক্ষণ একস্থানে বসে থাকলে রক্তচলাচল কমে যায়। তাই সম্ভব হলে যাত্রা বিরতিতে কিছুক্ষণ হাঁটাচলা করে নিন। এতে রক্তচলাচল স্বাভাবিক থাকবে।

৭) গর্ভাবস্থায় মোটর সাইকেলে দীর্ঘপথ পাড়ি দেয়া একেবারেই উচিত না। তাই গর্ভাবস্তায় টু হুইলের যানবাহনে ভ্রমন করার ঝুঁকি নিবেন না একদমই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *