মাত্র ৭দিনে পেটের মেদ কমানোর ৫টি সহজ টিপস

পেটের মেদ প্রায় প্রতিটি মানুষের জন্য একটি জটিল সমস্যা। পেট বড় থাকা বা ভুঁড়ি থাকা কারোরই কাম্য নয়। পেটের মেদ থাকলে তা শুধু যে দেখতেই অসুন্দর লাগে তা নয় এতে বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যাও দেখা দেয়।পেটের মেদ কমিয়ে ফেলার কিছু সাধারণ উপায় এখানে তুলে ধরা হলো যা অনুসরণ করলে আপনার পেট ও কোমরের মেদ কমাতে সাহায্য করবে এবং এর ফলাফল পেতে শুরু করবেন ১ সপ্তাহের মাঝেই।

১/ সার্কিট ট্রেইনিং (circuit training) –
যদি পেটের মেদ কমানোর সাথে সাথে কিছুটা পেশিও সুগঠিত করতে চান তবে সপ্তাহে ৩ দিন সার্কিট ট্রেইনিং করতে হবে। এর জন্য পুরো শরীরের ব্যায়াম করা প্রয়োজন যেমন lunges, pushups, pullups এক সেট করে ১৫ বার। তবে প্রতিটি ব্যায়ামের সাথে ১ মিনিট করে স্কিপ্পিং করে নিলে ক্যালরি বার্নের পরিমান হবে সর্বোচ্চ। এটা যদি ঠিক ভাবে করা যায় তাহলে প্রতিবার ব্যায়ামে প্রায় ৫০০-৬০০ ক্যালরি বার্ন করা সম্ভব।

২/ পেটের পেশীর ব্যায়াম –
সারা শরীরের মাঝে পেটের মেদ belly fat কমানো বেশ কঠিন কাজ। তাই সঠিক ভাবে পেটের মেদ কমাতে চাইলে সপ্তাহে ৩ দিন পেটের পেশীর ব্যায়াম করা জরুরি। উপরের ও নিচের পেটের জন্য crunches ও leg raises ব্যায়ামটি ৩ সেট করে ২০ বার করতে হবে।তবে এখানেই শেষ নয়। এর সাথে planks করতে হবে ৩০-৬০ সেকেন্ডের মতো সময় নিয়ে ৪ বার। planks হচ্ছে পুসআপের অবস্থানে ৩০-৬০ সেকেন্ড স্থির থাকা।

৩/ সঠিক খাবার নির্বাচন –
খাবারের ব্যাপারে আপনার নিজস্ব পছন্দ যাই হোক না কেন সেটা এই সময়ের জন্য পুরোপুরি ভুলে যেতে হবে এবং খুঁজে বের করতে হবে এমন খাবার গুলো যা আপনার পেটের মেদ কমাতে সক্ষম। যেমন খাবার তালিকায় রাখতে হবে ফল, সবজি, লাল চালের ভাত, লাল আটার রুটি, অটস, ভুসি সহ গমের তৈরি খাবার, মুরগি, মাছ, লো ফ্যাট দুধের তৈরি খাবার। তেলে ভাঁজা খাবার খাওয়া যাবে না এবং চিনি খাওয়া যতদূর সম্ভব বাদ দিতে হবে।

৪/ কম সোডিয়াম গ্রহন –
শরীরে অতিরিক্ত পানি ধরে জমে থাকার কারনে শরীর ফোলা দেখাতে পারে। এর ফলে তা অবশ্যই পেটেও ফোলা ভাবের সৃষ্টি করে। তাই সবসময় চেষ্টা করতে হবে শরীরে যেন পানি খুব পরিমানে জমে সেজন্য সোডিয়াম খুব কম গ্রহন করতে হবে। তাই শরীরে সোডিয়ামের পরিমান তখনই কমানো সম্ভব হবে যখন খাবারে বা অন্য যেকোনো ভাবে লবন খাওয়ার পরিমান কমানো যাবে। তাই লবনের পরিবর্তে অন্যান্য মশলা ব্যবহার করে খাবারের স্বাদ বৃদ্ধি করতে হবে এই সময়ে।

৫/ বিষণ্ণতা ও দুশ্চিন্তা থেকে দূরে থাকতে হবে –
এটা আমরা সবাই জানি যে সবসময় মনের অবস্থা একই থাকে না। দুশ্চিন্তা মুক্ত হয়ে খোশ মেজাজে থাকতে বলাটা যতটা সহজ থাকা ততটা নয়। কিন্তু এটা আমরা অনেকেই জানি না যে অতিরিক্ত মানসিক চাপের ফলে শরীরে cortisol নামক হরমোনের উৎপাদন অত্যাধিক বেড়ে যায় যা আমাদের পেটের ও তার আসেপাশের মেদ তৈরির জন্য দায়ী। তাই ধৈর্য হারিয়ে ফেললে চলবে না। মানসিক চাপ ও বিষণ্ণতা থেকে দূরে থাকতে হবে এই সময়টা।

উপরের পদক্ষেপ গুলো শুধু ১ সপ্তাহ নয় যদি বেশ কিছুদিন নিয়মিত করেন তাহলে পেটের মেদ তো কমবেই সাথে ওজনও কমাবে।

বিঃ দ্রঃ শুধুমাত্র শারিরিকভাবে সুস্থ ব্যক্তিরাই এটা অনুসরণ করবেন।

লেখক: শওকত আরা সাঈদা (লোপা)
জনস্বাস্থ্য পুষ্টিবিদ
এক্স ডায়েটিশিয়ান,পারসোনা হেল্‌থ
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান(স্নাতকোত্তর) (এমপিএইচ)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *