যন্ত্রণাদায়ক ব্ল্যাকহেডসের থেকে দ্রুত মুক্তির কার্যকরী ২ টি পদ্ধতি

যন্ত্রণাদায়ক ব্ল্যাকহেডসের সাধারণত নাকের চারপাশ এবং থুঁতনির দিকে বেশি দেখা যায়। যা ধুলোবালি এবং হরমোনের সমস্যার কারণেই দেখা দেয়। অনেকেই পার্লারে গিয়ে বেশ টাকা খরচ করেই ব্ল্যাকহেডসের ঝামেলা দূর করেন। কিন্তু সামান্য সমস্যার কারণে এতো টাকা খরচ করা এবং চিন্তিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। ঘরোয়া পদ্ধতিতে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিহীন উপায়ে যন্ত্রণাদায়ক ব্ল্যাকহেডস এবং হোয়াইটহেডস থেকে মুক্তি পাবেন খুব সহজেই।১/ ব্যথামুক্ত এবং খরচ বিহীন গরম পানি পদ্ধতি :

সব চাইতে সহজ, ব্যথামুক্ত এবং খরচ বিহীন পদ্ধতি হচ্ছে গরম পানির ব্যবহার। চলুন জেনে নেয়া যাক পদ্ধতিটি।

– একটি সসপ্যানে ফুটন্ত গরম পানি নিন। এই গরম পানির উপরে মুখ নিয়ে মাথা সহ পানির পাত্রটি একটি তোয়ালে দিয়ে ঢেকে গরম পানির ভাপ নিন।

– তোয়ালে মোটা হওয়ার কারণে গরম পানির ভাপ বাইরে বের হতে পারবে না। এভাবে ১০ মিনিট ভাপ নিন। এতে করে রোমকূপ পোরস বড় হয়ে যাবে।

– এবার একটি পার্লারের চিকণ কালো ক্লিপ অর্থাৎ ববি ক্লিপ নিন এবং পেছনের বাঁকানো গোল অংশ ত্বকের ব্ল্যাকহেডসের black heads অংশে চেপে ধরে ব্ল্যাকহেডস বের করে নিন।

– পোরস বড় হওয়ার কারণে খুব সহজেই একেবারে ব্যথা মুক্ত Pain-free ভাবে বেড়িয়ে যাবে ব্ল্যাকহেডস ও হোয়াইটহেডস।

– এরপর কুসুম গরম পানিতে ত্বক skin ধুয়ে মুছে ফেলুন ও ত্বক ভালো করে ময়েশ্চারাইজ করে নিন।

২/ প্রাকৃতিক উপাদান মধু ও দুধের ব্যবহার :

মধু ও দুধের এই পদ্ধতিটি খুবই সহজ এবং এই প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহারের ফলে ত্বকের কোনো ক্ষতিই হয় না। বরং দুধ ত্বক নরম ও কোমল করে এবং মধুর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান পরবর্তী চুলকোনি ও ব্রণ pimple সমস্যা দূরে রাখতে সহায়তা করে।

– ১ টেবিল চামচ মধু ও ১ চা চামচ দুধ milk নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এরপর ওভেনে ১ মিনিট দিয়ে বা চুলায় পানির পাত্রের উপরে বাটি দিয়ে জ্বাল দিন। থকথকে আঠালো ঘন হয়ে এলে নামিয়ে নিয়ে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় নিন।

– এরপর এই মিশ্রণটি ব্ল্যাকহেডসের উপরে অর্থাৎ নাক, নাকের পাশে লাগিয়ে নিন ভালো করে।

– এক টুকরো পাতলা সুতি পরিষ্কার কাপড় নিয়ে মিশ্রণের উপরে চেপে দিন। এভাবেই কাপড় রেখে শুকিয়ে যেতে দিন।

– ১৫-২০ মিনিটের মধ্যেই শুকিয়ে যাবে। এরপর ধীরে ধীরে কাপড়টি টেনে তুলে নিন এবং ঠাণ্ডা পানিতে মুখ ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

– এরপর মুখ মুছে ত্বকে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। ব্যস, ব্ল্যাকহেডসের ঝামেলা থেকে মুক্তি। প্রয়োজনে এই পদ্ধতি সপ্তাহে ৩ বার পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন। তবে, এর বেশি করা উচিত নয়।

তথ্যসূত্রঃ ইন্টারনেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *