রাতে ঘুমানোর আগে চুলের যত্নে যা করবেন!

রাতে ঘুমানোর সময় বালিশের কভারের ঘষায় চুল ঝরা, চুলের গোড়া আলগা হওয়া, চুলের আগা ভাঙ্গা, উজ্জ্বলতা কমা ইত্যাদি সমস্যা হতে পারে। ঘুমানোর আগে আরো কিছু ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে।
যতই ক্লান্তি থাকুক, রাতে ঘুমানোর আগে চুলের যত্ন খুবই জরুরি। কিভাবে যত্ন নেবেন বিস্তারিত জানালেন হারমনি স্পা অ্যান্ড ক্লিওপেট্রা বিউটি স্যালনের রূপ বিশেষজ্ঞ রাহিমা সুলতানা রীতা।

* চুল ভেজা থাকলে চুল শুকিয়ে ঘুমাতে যাবেন। চুল শুকাতে হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার না করে মোটা তোয়ালে দিয়ে মুছে তারপর মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে হালকা করে আঁচড়ালে ভালো হয়। ভেজা চুল জোর করে আঁচড়ালে চুলের গোড়া আলগা হয়ে যায়। ভেজা চুল নিয়ে ঘুমালে চুলে জট পড়ে।

* বিশেষ কোনো হেয়ার স্টাইল করতে চুলে প্রচুর ক্লিপ, বিডস দিয়ে চুল বাঁধলে ঘুমাতে যাওয়ার আগে অবশ্যই এগুলো খুলে চুল আঁচড়িয়ে বেধে তবেই ঘুমাতে যাবেন।

* হেয়ার স্টাইল করতে হেয়ার জেল বা স্প্রে ব্যবহার করা হয়। এসব ক্ষেত্রে বাড়ি ফিরে চুল ভালো করে পানি দিয়ে ধুয়ে বা শ্যাম্পু করে নিতে পারলে ভালো।

* প্লাস্টিকের মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে ভালো করে জট ছাড়িয়ে নিন।

* প্রথমে সব চুল উল্টে নিয়ে পেছন থেকে সামনের দিকে কিছুক্ষণ আঁচড়ান। আবার কিছুক্ষণ সামনে থেকে পেছন দিকে আঁচড়ান। এভাবে প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে চুল আঁচড়ে ঘুমাতে গেলে মাথার স্ক্যাল্পে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে এবং চুলপড়া কমে যাবে।

* চুল পরিষ্কার থাকলে রাতে চুলে তেল লাগিয়ে রাখতে পারেন। নারিকেল তেল কিংবা অলিভ অয়েল অল্প গরম করে মাথার তালু থেকে চুলের আগা পর্যন্ত পুরো চুলে ভালো করে লাগিয়ে নিন। এরপর পাঁচ মিনিট ম্যাসাজ করে নিন। সম্ভব হলে সপ্তাহে অন্তত এক দিন একটা ভিটামিন-ই ক্যাপসুল কেটে তেলের সঙ্গে মিশিয়ে মাথায় লাগাতে পারেন। কাপড় দিয়ে তৈরি ব্যান্ড বা কাপড় দিয়ে মাথা ঢেকে ঘুমালে বালিশে তেল লাগবে না।

* কখনোই চুল খোলা রেখে ঘুমাবেন না। ঘুমাতে যাওয়ার আগে মাঝারি চুলে বেণি বাঁধা যেতে পারে। এ ছাড়া যাঁদের চুল ছোট তাঁরা উঁচু করে পনিটেল বেঁধে নিতে পারেন।

* চুল খুব টেনে বাঁধবেন না, এতে কপাল চওড়া হয়ে যাবে, আর চুল বেশি পড়বে।

* সকালে ঘুম থেকে উঠার পর অনেক সময় চুল নিস্তেজ থাকে। এ ক্ষেত্রে ঘুম থেকে উঠে মাথা নিচু করে হাত দিয়ে স্ক্যাল্পে সার্কুলার মুভমেন্টে (ঘড়ির কাটার বিপরীত দিকে) ম্যাসাজ করুন। এতে স্ক্যাল্পের রক্ত সঞ্চালন বাড়বে এবং চুলের সতেজতা ফিরে আসবে।

* নাইলনের দাঁত আছে এমন ব্রাশ দিয়ে কোঁকড়ানো চুল আঁচড়াবেন না।

* অমসৃণ কভারের বালিশে ঘুমালে সারা রাত চুল ঘষা খায়। ফলে চুল রুক্ষ হয়ে ওঠে। সেই সঙ্গে দেখা দেয় আগা ফাটা ও চুল ভেঙে ঝরে পড়ার সমস্যা। চুলের এই ক্ষতি থেকে মুক্তি পেতে ব্যবহার করতে পারেন সুতি, সার্টিন অথবা সিল্ক কাপড়ের কভার। যদি না থাকে, তাহলে সিল্কের স্কার্ফ বালিশে বিছিয়ে নিন।

⇒ উপকারি হলে প্লিজ বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন শেয়ার করতে √ এখানে ক্লিক করুন

সূত্র: কালেরকণ্ঠ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *