শরীর ও মনকে সুস্থ্য রাখাতে ব্যায়াম করুণ

joogaব্যায়াম আমাদের শরীর ও মনকে সুস্থ্য রাখাতে সাহায্য করে। অনেকেই বাসায় নিজে নিজে অথবা জিমে ব্যায়াম করেন। প্রতিটি কাজেরই সুনির্দিষ্ট নিয়ম আছে। যেমন খাবারের সঠিক নিয়ম আছে , তেমনি ব্যায়াম এর ও অনেক নিয়ম আছে,যা আমাদের নিয়ম গুলো জানা বা মানা দরকার। ব্যায়াম যদি ঠিক মত না হয়,তবে শারীরিক নানান রকম সমস্যা হয়। তাই নিজেকে সুস্থ ও স্বাভাবিক রাখতে হলে ব্যায়াম করার নিয়মগুলো ভালো ভাবে জানতে হবে এবং মেনে চলার ও চেষ্টা করতে হবে। এখানে বলা হলো ব্যায়াম শুরুর এমন কিছু কথা, যা জানাটা জরুরি।

= যে ব্যায়ামই করুন না কেন, শুরুতেই সামান্য স্ট্রেচিং ও ওয়ারমাপ অবশ্যই করবেন। না হলে পেশি ও লিগামেন্টে আঘাত লাগার সম্ভাবনা থাকে।

= যদি এক ঘণ্টা ব্যায়াম করেন তাহলে প্রথম চার-পাঁচ মিনিট হালকা ও ধীরলয়ের ব্যায়াম করবেন। শেষের দু-তিন মিনিটও তাই।

= ব্যায়াম করার সময় শারীরিক কষ্ট হওয়া মাত্র ব্যায়াম থামিয়ে দেবেন। প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞ বা প্রশিকের পরামর্শ নিন।

= শুরুতেই অনেক সময় ধরে অনেক ভারী ব্যায়াম করবেন না। প্রথমে হালকা ব্যায়াম কম সময় ধরে করুন। প্রতিদিন একটু একটু করে বাড়ান।

= ব্যায়াম করার সময় নিঃশ্বাস স্বাভাবিকভাবে নেওয়ার চেষ্টা করবেন। কখনও খুব কষ্ট করে নিঃশ্বাসনেবেন না। ভালোভাবে নিঃশ্বাস যেন নিতে পারেন এমন করেই ব্যায়াম করবেন। তবে আসন বা যোগ ব্যায়ামের সময় নিঃশ্বাস নেওয়ার রীতি অবশ্যই আলাদা। এক্ষেত্রে পুরোপুরি আসনের নিয়ম মানতে হবে।

= জোরেহাঁটা, জগিং বা পায়ের ওপর চাপ পড়বে এমন ভারী ব্যায়াম করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ বা প্রশিকের পরামর্শ নিন। তা না হলে পায়ের সন্ধি বা কোষগুলোতে চাপ পড়ে ব্যাথা করবে, সাথে সাথে পিঠেও ব্যাথা হতে পারে।

= খুব টাইট বাশক্ত পোশাক পরে ব্যায়াম করা ঠিকনা। টাইট পোশাক পরলে আপনার ব্যায়াম করার ভঙ্গিমায় কোথাও বাধা পড়তে পারে। এর ফলে ব্যায়ামের পুরো সুফল পাবেন না।

বিঃ দ্রঃ ভরাপেটে ব্যায়াম একদমই করবেন না। তবে একদমই খালি পেটেও ব্যায়াম করবেন না। তাই ব্যায়াম শুরুর আগে দুটি টোস্ট বা একটা আপেলের মতো হালকা কিছু খেতে পারেন।

No comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *