শ্যাম্পু ছাড়াই ঝলমলে উজ্জ্বল চুল

একটা সময়ে সাবান দিয়েই হতো চুল পরিষ্কারের কাজটি। কিন্তু শ্যাম্পু এখন এতোটাই সহজলভ্য যে চুল সুন্দর রাখতে কেউই আর সাবান ব্যবহার করেন না।

নামী-দামী ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু ব্যবহার করার পরও প্রাণহীন আর অনুজ্জ্বল হয়ে পড়ছে চুল? তাহলে শ্যাম্পু সরিয়ে রাখুন- চুলের যত্নের দায়িত্ব তুলে দিন কিছু ভেষজ উপাদানের হাতে, যা দেবে শ্যাম্পুর চেয়েও বেশি উপকারিতা।

ক্যামোমিল চা:
ক্যামোমিল চা স্বাস্থ্যের জন্য যেমন উপকারী, তেমনি চুলের জন্যও। এক ধরনের ফুলের নির্যাস থেকে তৈরি এই বিশেষ চাপাতা মাথার রুক্ষ ত্বককে সতেজ করে এবং চুল মোলায়েম করে তুলতে পারে। এজন্য ক্যামোমিল চা ফুটিয়ে ছেঁকে পানিটুকু শ্যাম্পুর মতো চুলে ঘষে মেখে ধুয়ে নিন। অথবা পানিতে চা পাতা ভিজিয়ে রেখে, সেই পানি দিয়েও চুল ম্যাসেজ করতে পারেন। যে পদ্ধতিই অনুসরণ করুন, উপকার পাবেন নিশ্চিত।

আমলকি:
ভেষজ হিসেবে আমলকির গুণাবলীর তালিকা দীর্ঘ। চুলের যত্নেও এই ভেষজ ফলটি তুলনাহীন। আজকাল তেল কিংবা শ্যাম্পু থেকে শুরু করে চুলের বিভিন্ন প্রসাধনেও ব্যবহৃত হচ্ছে আমলকি। এতে আছে ভিটামিন সি। যা মাথার ত্বকে তৈরি যে কোন ইনফেকশন সারাতে সহায়তা করে। চুলকে করে তোলে সুন্দর ঝরঝরে। খুশকির দৌরাত্ম্য দমনেও আমলকি উপকারি।আমলকি কেটে দুধে ভিজিয়ে রাখুন ঘণ্টা কয়েক। ভিজিয়ে রাখা আমলকি বেটে পেস্ট তৈরি করুন। তারপর সেই পেস্ট চুলে বিলি কেটে কেটে একেবারে চুলের গোড়ায় ঘষে ঘষে মাখুন। এক ঘণ্টা রেখে দিন। তারপর ধুয়ে ফেলুন। পারলে আমলকির পেস্টের সঙ্গে মেহেদি পাতাও যোগ করতে পারেন। আরো ভালো চুল পাবেন।

লেবু:
চুলের যত্নে লেবুও ভীষণ কার্যকর। ক্লিনজার হিসেবে লেবু খুব ভালো কাজ করে। মাথার ত্বকের ব্যাকটেরিয়া দূর করতেও লেবু সাহায্য করতে পারে। এজন্য এক মগ পানিতে একটি লেবু রস চিপে নিন। সেই পানি চুলে ভালো করে লাগিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। তৈলাক্ত চুল ঝরঝরে করে তুলতে লেবুর রসের তুলনা নেই। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া