স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পেতে ৪টি পরামর্শ

ঝলমলে সুন্দর চুল কে না চায়। রেশমের মতো নরম ও চকচকে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পেতে জেনে নিন কিছু পরামর্শ। ধরন বুঝে কিছু প্রাকৃতিক যত্ন নিলেই ঘরে বসেই পেতে পারেন রেশমি ও ঝলমলে চুল।shajghor_hair jholmolচুল মূলত চার ধরনের হয়। তৈলাক্ত চুল, মিশ্র চুল, রুক্ষ চুল, স্বাভাবিক চুল।

 তৈলাক্ত চুলের যত্নঃ
তৈলাক্ত চুল সারাক্ষণই চটচটে হয়ে থাকে। ভেজা ভাব থাকে, ফলে খুব দ্রুত খুশকি ও ময়লা জমে। এ চুল সপ্তাহে অন্তত তিনদিন খুব ভালো শ্যাম্পু দিয়ে ঠাণ্ডা পানিতে ধুতে হবে। খুব বেশি ম্যাসাজ বা তেল দেয়া যাবে না। অনেকক্ষণ চিরুনি দিয়ে অাঁচড়াবেন না। এতে আরো বেশি তেল নিঃসৃত হবে। শ্যাম্পু শেষে সাধারণ কন্ডিশনার ব্যবহার করতে পারেন। তারপর এক মগ পানিতে চার টেবিল চামচ লেবুর রস মিলিয়ে ধুয়ে ফেলবেন। মিশ্র চুলের যত্নঃ
অনেকের চুল মিশ্র প্রকৃতির হয়। এ চুলের গোড়া চটচটে থাকে, কিন্তু উপরিভাগ রুক্ষ প্রকৃতির হয়। মিশ্র চুলে সপ্তাহে অন্তত তিনদিন শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। শ্যাম্পুর আগে কুসুম গরম তেলে লেবুর রস মিশিয়ে হালকা ম্যাসাজ করে নেবেন। পানিতে গি্লসারিন মিশিয়েও ম্যাসাজ করতে পারেন।রুক্ষ চুলের যত্নঃ
আজকাল রুক্ষ চুলও খুব বেশি দেখা যায়। ধুলাবালি, রোদের ক্ষতিকর প্রভাবে চুল রুক্ষ হতে পারে। রুক্ষ চুলে কোনো চকচকে ভাব থাকে না, চুলের আগা ফাটা হয়। এ চুল অন্তত তিনদিন খুব ভালো ম্যাসাজ করতে হবে তেল দিয়ে। ময়েশ্চারসমৃদ্ধ শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে ও ডিপ কন্ডিশনিং করা চাই। শ্যাম্পুর আগে তেলের বদলে ঘৃতকুমারীর (অ্যালোভেরা) শাঁস বা দুধ ও মধুর মিশ্রণ দিয়েও ম্যাসাজ করা যায়। শ্যাম্পু শেষে এক মগ পানিতে দুই টেবিল চামচ লেবুর রস ও চার টেবিল চামচ মধু মিলিয়ে চুল ধুতে পারেন।

স্বাভাবিক চুলের যত্নঃ
যাদের চুল স্বাভাবিক, তাদের চুল নিয়ে খুব কমই ভাবতে হয়। তাদের চুল স্বাভাবিকভাবেই রেশমি হয়। তারা সপ্তাহে একদিন শ্যাম্পু করলেও চলে। মাঝেমধ্যে রিঠা, শিকাকাই ও আমলকী ভেজানো পানি চুলে ম্যাসাজ করতে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *