হেয়ার আয়রন ছাড়া প্রাকৃতিক উপায়ে চুল স্ট্রেইট করুন

বর্তমান সময়ে চুল স্ট্রেইট করা সাধারণ একটি বিষয়। অনেকে হেয়ার স্ট্রেইনার দিয়ে চুল স্ট্রেইট করে থাকে। স্ট্রেইটনার দিয়ে চুল সোজা করার কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। চুলের আগা ফাটা, চুল রুক্ষ হয়ে যাওয়া, চুল পড়া বৃদ্ধি এর মধ্যে অন্যতম। হেয়ার স্ট্রেইনারের পরিবর্তে অনেকে আবার পার্লারে গিয়ে রিবন্ডিং করেন। পার্লারে রিবন্ডিং করা কিছুটা ব্যয়বহুল। ঘরোয়া কিছু উপায়ে চুল স্ট্রেইট করা সম্ভব।
১। নারকেল দুধ
নারকেলের দুধ চুল শাইনি করে স্ট্রেইট করে তোলে। এক কাপ নারকেল দুধের সাথে একটি লেবুর রস ভাল করে মিশিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন কয়েক ঘন্টা। এটি যখন ঘন ক্রিমি হবে তখন মাথার তালুতে ম্যাসাজ করে লাগান। ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করুন। চুল ভেজা থাকা অবস্থা চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ান।

২। দুধ
এই পদ্ধতিতে চুল স্ট্রেইট করার জন্য আপনার লাগবে মাত্র ১/৩ কাপ দুধ, ১/৩ কাপ পানি ও একটি স্প্রে বোতল।চুল যদি বেশি কোঁকড়া হয় তবে মিশ্রনে ২ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে নিতে পারেন। একটি পাত্রে দুধ ও পানি ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর এটি স্প্রে বোতলে ঢালুন। চুলের জট একটি বড় দাঁতের চিরুনি দিয়ে ছাড়িয়ে নিন। এবার এই মিশ্রণটি স্প্রে করুন পুরো চুলে। সব দিকে ভালো করে স্প্রে করে নিন। মাঝে মাঝে চুল আঁচড়ে নিন বড় দাঁতের চিরুনি দিয়ে। ১ ঘণ্টা রাখুন। তারপর চুল ধুয়ে ফেলুন শ্যাম্পু দিয়ে। কন্ডিশনার লাগাবেন অবশ্যই। চুল শুকিয়ে গেলে স্ট্রেইট হয়ে যাবে। এভাবে স্ট্রেইট করলে চুলে পরবর্তীতে পানি লাগানোর আগ পর্যন্ত চুল সোজা থাকবে।

৩। মুলতানি মাটি
এক কাপ মুলতানি মাটি, একটি ডিমের সাদা অংশ, দুই টেবিল চামচ চালের গুঁড়ো এবং পানি ভাল করে মিশিয়ে নিন। এই পেস্টটি চুলে ভাল করে মেশান। বড় দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়িয়ে নিন। এভাবে এক ঘণ্টা রেখে দিন। তারপর দুধ দিয়ে চুল স্প্রে করুন। ১৫ মিনিট পর চুল শ্যাম্পু করুন।

৪। অ্যালোভেরা জেল
আধা কাপ অ্যালোভেরা জেল কুসুম গরম অলিভ অয়েলের সাথে মিশিয়ে নিন। এরসাথে চন্দনের তেল অথবা রোজমেরি অয়েল মেশাতে পারেন। এটি মাথার তালুতে ভালভাবে ম্যাসাজ করুন। এইভাবে এক দুই ঘণ্টা থাকুন। তারপর চুল শ্যাম্পু করে ফেলুন।

প্রাকৃতিক উপায়ে চুল স্ট্রেইট রাতারাতি করতে পারবেন না। এরজন্য কিছুটা ধৈর্য ধরতে হবে। নিয়মিত ব্যবহারে এই প্যাকগুলো চুল স্ট্রেইট করবে।

⇒ ভালো লাগলে প্লিজ বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন শেয়ার করতে √ এখানে ক্লিক করুন

লিখেছেন- নিগার আলম
তথ্যসুত্রঃ প্রিয় লাইফ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *